বুধবার, ২৪ জুলাই, ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ |৯ শ্রাবণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
মহিলার স্বজনদের সন্ধান চায় পুলিশ  » «   কোম্পানীগঞ্জে ইয়াবা সহ আটক ১  » «   কোম্পানীগঞ্জে ইয়াবা সহ আটক ১  » «   কোম্পানীগঞ্জে উপজেলা প্রশাসনের ত্রাণ বিতরণ  » «   কোম্পানীগঞ্জ থানা পুলিশের অভিযানে ৫৮ অফিসার চয়েস সহ আটক ১  » «   দেশবাসী ও মুসলিম উম্মাহকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন মুফতি ইমাম উদ্দিন  » «   একাত্তরের কথা’র অনলাইনভার্সন যাত্রা করছে আজ  » «   কোম্পানীগঞ্জ প্রবাসী উন্নয়ন পরিষদ ইতালি শাখার কমিটি গঠন  » «   কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী হাজী আমিনুল হকের গনসংযোগ  » «   কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী সাংবাদিক আবিদুর রহমান  » «   সিলেট ৪ আসনে ইমরান আহমদের পক্ষে বিরামহীন প্রচারণায় ছাত্রনেতা সজিবুল ইসলাম  » «   মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক, কোম্পানীগঞ্জের বিশিষ্ট মুরব্বি কালা চাঁন মিয়ার ইন্তেকাল, বিভিন্ন মহলের শোক  » «   রাজনগর নতুন বাজার ফ্রেন্ডস স্টাফের দিনব্যাপী তাফসীরুল কোরআন মাহফিল  » «   কোটা বহালের দাবিতে কোম্পানীগঞ্জে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ  » «   কোম্পানীগঞ্জ প্রেসক্লাবে জমিয়ত মনোনীত প্রার্থীর মতবিনিময়  » «  

পাঁচ টাকা সরকারি হচ্ছে

companigonjerdak_14নিউজ ডেস্ক : দুই টাকার মুদ্রা বা ধাতব কয়েন এতোদিন সরকারি মুদ্রা হিসেবে প্রচলিত ছিল। কিন্তু এর ক্রয় ক্ষমতা দিন দিন হ্রাস পাওয়ায় সরকার পাঁচ টাকাকে সরকারি মুদ্রা ঘোষণা করার উদ্যোগ নিয়েছে। এ সংক্রান্ত একটি বিল আসন্ন অষ্টম সংসদ অধিবেশনেই পাশের জন্য তোলা হচ্ছে।
মঙ্গলবার অর্থমন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি বিলটি যাচাই-বাছাই করে প্রয়োজনীয় সংশোধনী এনে চূড়ান্ত করেছে। যা আসছে অষ্টম অধিবেশনেই পাশ করার জন্য সুপারিশ করা হয়েছে।

গত ৮ সেপ্টেম্বর জাতীয় সংসদে বাংলাদেশ কোয়েনেজ অর্ডার-১৯৭২ সংশোধন বিল উত্থাপন করেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। পরে বিলটি পরীক্ষাপূর্বক প্রতিবেদন আকারের জন্য ৩০ কার্য দিবসের মধ্যে অর্থমন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটিতে পাঠানো হয়।

বিলের উদ্দেশ্য ও কারণ সম্পর্কিত বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ১৯৭২ সালে দ্য বাংলাদেশ কোয়েনেজ অর্ডার দীর্ঘ ১৭ বছর পর ১৯৮৯ সালে সংশোধন করে ২ টাকাকে সরকারি মুদ্রা করা হয়। এর আগে সর্বোচ্চ এক টাকার মুদ্রা সরকারি মুদ্রা হিসেবে পরিচিত ছিল। ইতোমধ্যে ২৬ বছর অতিবাহিত হয়েছে। ২ টাকার ক্রয় ক্ষমতাও আগের তুলনায় হ্রাস পেয়েছে। ফলে বর্তমানে আইনের অধিকতর সংশোধনের মাধ্যমে ৫ টাকার নোটকে সরকারি মুদ্রায় রূপান্তরের সিদ্ধান্ত হয়েছে। এই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়িত হলে দেশের মোট অর্থের যোগান অপরিবর্তিত থাকবে। এ কারণে মূল্যস্ফীতিজনিত কোনো প্রভাব পড়বে না।

বিলে উল্লেখ করা হয়, ১৯৭৪-৭৫ সালে বাজারে প্রচলিত মোট অর্থের মধ্যে সরকারি মুদ্রার পরিমাণ ছিল ১০ দশমিক ৭০ শতাংশ। ২০১৩-১৪ অর্থবছর শেষে যা দশমিক নয় শুন্য শতাংশে নেমে আসে। ৫ টাকা মূল্যমানের নোট ও কয়েনগুলোকে সরকারি মুদ্রায় রূপান্তর করা হলে সরকারি মুদ্রার পরিমাণ বাজারে প্রচলিত মোট মুদ্রার ১ দশমিক পাঁচ শুন্য শতাংশে উন্নীত হবে।

আপনার মতামত প্রদান করুন

টি মন্তব্য